বাংলাদেশ থেকে আমেরিকার বিমান ভাড়া কত

যারা কখনও দেশের বাইরে ভ্রমন করেনি তারা অনেকেই জানে না যে বাংলাদেশ থেকে আমেরিকার বিমান ভাড়া কত। যারা বাংলাদেশ থেকে আমেরিকা বিমানে যেতে চান তাদের জন্য আমাদের আজকের এই পোষ্ট। আজকের এই পোস্টে আমি আপনাদের সামনে বিস্তারিত এ বিষয়ে তুলে ধরব। কারণ রুট এবং এয়ারলাইন্স অনুযায়ী ফ্লাইট এর ভাড়া আলাদা আলাদা হয়।

তাহলে চলুন আর দেরি না করে বাংলাদেশ থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ফ্লাইট করে যাওয়ার জনপ্রিয় এয়ারলাইন্স গুলোর তথ্য এবং 21 ঘন্টা 35 মিনিটের (রুট এবং এয়ারলাইন্স অনুযায়ী সময়টা কমবেশি হতে পারে) এই ভ্রমণে বাংলাদেশ থেকে আমেরিকার বিমান ভাড়া কত তা জেনে নেয়া যাক।


প্রথমেই, আমরা বাংলাদেশ থেকে আমেরিকা যাওয়ার জন্য যে জনপ্রিয় এয়ারলাইন্স গুলো রয়েছে সেগুলো সম্পর্কে এবং বাংলাদেশ থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জনপ্রিয় রুট গুলোর তথ্য জেনে নেব। তাহলে আমরা সহজেই বুঝতে পারব রুট এবং এয়ারলাইন্স অনুযায়ী বিমান ভাড়ার পার্থক্য। ফলে সহজেই আপনারা কোন রুট বা কোন এয়ারলাইন্সে করে বাংলাদেশ থেকে আমেরিকা ভ্রমণ করবেন সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন।

বাংলাদেশ থেকে আমেরিকার বিমান ভাড়া কত

বাংলাদেশ থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ফ্লাইট করে যাওয়ার জনপ্রিয় এয়ারলাইন্স

  1. ইন্ডিগো (Indigo)
  2. তুর্কি এয়ারলাইনস (Turkish Airlines)
  3. কাতার এয়ারওয়েজের (Qatar Airways)
  4. ইতিহাদ এয়ারওয়েজের (Etihad Airways)
  5. এমিরেটস (Emirates)

এগুলোর মধ্যে থেকে কোন এয়ারলাইন্সে করে আপনি ভ্রমণ করবেন সেই সিদ্ধান্তটা আপনিই নিবেন। এগুলো সম্পর্কে আপনি বিস্তারিত তথ্য জেনে নেবেন যাতে আপনি যাচাই-বাছাই করে যেটা আপনার কাছে সুবিধাজনক মনে হয় সেটা সিলেক্ট করতে পারেন।

বাংলাদেশ থেকে আমেরিকার জনপ্রিয় রুট

  • বাংলাদেশ টু নিউইয়র্ক সিটি (New York)
  • বাংলাদেশ টু সিনসিনাটি (Cincinnati) 
  • বাংলাদেশ টু সিয়াটল (Seattle)
  • বাংলাদেশ টু শিকাগো (Chicago)
  • বাংলাদেশ টু আটলান্টা (Atlanta)
  • বাংলাদেশ টু মিয়ামি (Miami)
  • বাংলাদেশ টু ডেট্রয়েট (Detroit)
  • বাংলাদেশ টু ওয়াশিংটন (Washington)
  • বাংলাদেশ টু হিউস্টন (Houston)
  • বাংলাদেশ টু ফিলাডেলফিয়া (Philadelphia)
  • বাংলাদেশ টু সান ফ্রান্সিসকো (San Francisco)
  • বাংলাদেশ টু অস্টিন (Austin)
  • বাংলাদেশ টু ইন্ডিয়ানাপলিস (Indianapolis)
  • বাংলাদেশ টু বোস্টন (Boston)
  • বাংলাদেশ টু লস অ্যাঞ্জেলেস (Los Angeles)
  • বাংলাদেশ টু ওমাহা (Omaha)
  • বাংলাদেশ টু অরল্যান্ডো (Orlando)
  • বাংলাদেশ টু মিনিয়াপলিস (Minneapolis)
  • বাংলাদেশ টু ডালাস (Dallas)
  • বাংলাদেশ টু টাম্পা (Tampa)

এগুলো ছিল বাংলাদেশ থেকে আমেরিকা যাওয়ার জন্য কিছু জনপ্রিয় রুট। এখন আমরা আপনাদের সামনে উপস্থাপন করব আলাদা আলাদা রুট অনুযায়ী বিমান ভাড়া কত। 

বাংলাদেশ থেকে আমেরিকার বিমান ভাড়ার চার্ট

স্থানঃ ঢাকা টু ওয়াশিংটন ভাড়াঃ ১৬০০ থেকে ১৮০০ ডলার

স্থানঃ ঢাকা টু সিয়াটল ভাড়াঃ ২১০০ থেকে ২২৫০ ডলার

স্থানঃ ঢাকা টু বোস্টন ভাড়াঃ ১৫০০ থেকে ২০০০ ডলার

স্থানঃ ঢাকা টু ডলাস ভাড়াঃ ১৮০০ থেকে ১৮০০ ডলার

স্থানঃ ঢাকা টু হিউস্টন ভাড়াঃ ১৭০০ থেকে ১৯০০ ডলার

স্থানঃ ঢাকা টু ফ্রান্সিসকো ভাড়াঃ ১৮০০ থেকে ২০০০ ডলার

স্থানঃ ঢাকা টু নিউইয়র্ক ভাড়াঃ ১৪০০ থেকে ১৬০০ ডলার

স্থানঃ ঢাকা টু শিকাগো ভাড়াঃ ১৪০০ থেকে ১৬৫০ ডলার

স্থানঃ ঢাকা টু লস অ্যাঞ্জেলেস ভাড়াঃ ১৬০০ থেকে ১৯০০ ডলার


ঢাকা থেকে নিউইয়র্ক সিটিতে অর্থাৎ বাংলাদেশ থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভাড়া সাধারণত ৭৬,০০০ থেকে ১,১২,০০০ টাকা পর্যন্ত। তবে এটা ডলারের মান এবং বিভিন্ন সময়ে আপডেট হওয়ার কারণে কমবেশি হতে পারে তাই টিকিট কাটার আগে অবশ্যই আপনারা ভালো ভাবে জেনে নিশ্চিত হয়ে নেবেন।

আরো পড়ুনঃ

এই পোষ্টে রুট এবং এয়ারলাইন্স অনুযায়ী বিস্তারিত তথ্য দেয়ার উদ্দেশ্য একটাই সেটা হলো আপনারা যাতে বাংলাদেশ থেকে আমেরিকার বিমান ভাড়া কত সে বিষয়ে একটা মোটামুটি ধারণা পান। আমি আপনাদের এয়ারলাইন্সের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট গুলো দিয়ে রেখেছি আপনারা সেগুলোতে গিয়ে ঘুরে দেখবেন। বিভিন্ন সময়ে আপডেট হওয়া ভাড়া সম্পর্কে আপনারা জানতে পারবেন।

বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুতগতির এবং নিরাপদ ভ্রমণের অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে বিমান। হাজার হাজার কিলোমিটার পথ এখন কয়েক ঘণ্টার মাধ্যমে পার করা সম্ভব। আগে বিমানের টিকিট কাটা খুব ঝামেলার একটি ব্যাপার ছিল অনেক সময় হয়রানির শিকার হতে হতো। কিন্তু বর্তমানে ডিজিটালাইজেশনের কারণে অনলাইনের মাধ্যমে অনেক সহজেই টিকিট কাটা সম্ভব হয়। বিশ্বের উন্নত প্রায় সব দেশগুলোতে এই সুবিধা রয়েছে।


বর্তমানে zooFamily ট্রাভেল এজেন্ট সহজে এবং কম সময়ের মধ্যে টিকিট কেটে দেয়। তবে বাংলাদেশে এখনও অনলাইন থেকে বিমানের টিকিট কাটার জন্য তেমন সুবিধা নেই। আশা করা যায় দেশ আধুনিক হওয়ার সাথে সাথে বিমানের টিকিট কাটা আমাদের জন্য সহজ করে দেওয়া হবে।

এছাড়া আপনি চাইলে বিমানবন্দরে গিয়ে সেখানের দায়িত্বরত লোকদের সাথে কথা বলে ঢাকা থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লাইট এর টিকিট বুকিং দিতে পারেন। ঢাকা সবচেয়ে কাছে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর IATA কোড DAC অন্যতম। এছাড়া মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বা আমেরিকার সবচেয়ে জনপ্রিয় বিমানবন্দর IATA কোড JFK অন্যতম। 


এতক্ষণ আমি আপনাদের সাথে বাংলাদেশ থেকে আমেরিকার বিমান ভাড়া কত সেটা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করলাম। ঢাকা থেকে যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার জন্য এয়ারলাইন্স, রুট এবং ভাড়ার তথ্য গুলো যেকোনো সময় পরিবর্তন হতে পারে তাই আপনারা অবশ্যই এগুলো যাচাই করে নিবেন। পাশাপাশি আপনার পরিচিত কেউ যদি আমেরিকা ভ্রমণ করে থাকে তাদের সাথে আলোচনা করবেন এবং গুগল থেকে সার্চ দিয়ে আপনার প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো অবশ্যই জেনে নেবেন। এতোটুকুই ছিলো আজকের পোস্ট কথা অবস্থা সমস্যা হলে কমেন্ট করে জানাবেন, এতক্ষণ মনোযোগ দিয়ে পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url